NATIONAL GARMENT WORKERS FEDERATION (NGWF)


গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানাধীন হেসং কর্পোরেশন (বিডি) লিঃ (গার্মেন্টস কারখানা) এর সামনে শ্রমিকদের শান্তিপূর্ন কর্মসূচীতে মালিকের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের হামলার প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে কারখানার মালিক ও হামলাকারীদের গ্রেফতার এবং বিচারের দাবীতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল

গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানাধীন হেসং কর্পোরেশন (বিডি) লিঃ (গার্মেন্টস কারখানা) এর সামনে শ্রমিকদের শান্তিপূর্ন কর্মসূচীতে মালিকের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের হামলার প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে কারখানার মালিক ও হামলাকারীদের গ্রেফতার এবং বিচারের দাবীতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল

 

জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ বলেন, কালিয়াকৈর, গাজীপুরের হেসং কর্পোরেশন লিঃ (গার্মেন্টস কারখানা) এর সামনে ২১৮ জন শ্রমিকের এপ্রিল, মে, জুন ২০১৭ মাসের বকেয়া বেতন ভাতা ও আইনানুগ পাওনাদি পরিশোধের দাবীতে কারখানার সামনে শ্রমিকদের শান্তিপূর্ন অবস্থান কর্মসূচীতে কারখানার মালিক, জিএম এর মদদে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের হামলায় জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মিসেস আরিফা আক্তার, সহ সভাপতি মিস শাফিয়া পারভীন, সহ সাধারণ সম্পাদক ফরিদুল ইসলাম, স্থানীয় কর্মী আবুল কালাম, হেসং এর শ্রমিক লাকী ও সেলিনা সহ ৫০ থেকে ৬০ জন শ্রমিককে আহত হয়। আহতরা বর্তমানে গাজীপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি আছে। ফেডারেশনের আশুলিয়া এলাকার কর্মী আব্দুল জলিলকে দুপুর ১ টা অপহরণ করে নিয়ে যায় পরবর্তীতে রাত ৯ টার সময় কারখানার গেটের সামনে রেখে যায়। উক্ত বিষয়টি অবগত করিয়া গত ১৬.০৮.২০১৭ তারিখে বিকাল ৩ টা থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত গাজিপুরের কালিয়াকৈর থানায় অবস্থান করে অভিযোগ দায়ের করতে গেলে উক্ত থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কোন অভিযোগ/সাধারণ ডায়েরি গ্রহন করে নাই। উক্ত হামলার প্রতিবাদে অবিলম্বে কারখানার মালিক, জিএম ও হামলাকারীদের গ্রেফতার এবং বিচারের দাবীতে জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে আজ ১৭ আগষ্ট ২০১৭ বেলা ১২ টায় জাতীয় প্রেসক্লাব এর সামনে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।
বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানাধীন হেসং কর্পোরেশন (বিডি) লিঃ এর শ্রমিকরা ২০১৬ সালের অভোগকৃত অর্জিত ছুটির মজুরী দাবী করায় কারখানার মালিক শ্রমিকদের এপ্রিল, মে এবং জুন ২০১৭ মাসের বকেয়া বেতন ভাতা প্রদান না করিয়া বহিরাগত ভাড়াটিয়া মাস্তান দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে ২১৮ জন শ্রমিককে কাজ যোগদান থেকে বিরত রাখেন এবং অনিদৃষ্টকালের জন্য কারখানা বন্ধ ঘোষনা করেন। তারই প্রেক্ষিতে গত ২০ জুন ২০১৭ ইং তারিখ বিজিএমইএ এবং কলকারখানা অধিদপ্তর ঘেরাও কর্মসুচী পালন করার পর ২২ জুন কারখানা কতৃপক্ষ, কলকারখানা অধিদপ্তর একটি লিখিত চুক্তি হয় যে, আগামী ৪ জুলাই ২০১৭ ইং তারিখে বেলা ২ ঘটিকায় কারখানা হতে শ্রমিকদের আইনানুগ ক্ষতিপুরণ পরিশোধ করা হবে। কিন্তু উক্ত তারিখে মালিক শ্রকিদের কোন পাওনাদি প্ররিশোধ করে নাই। পরবর্তীতে আবারো ০৪.০৮.২০১৭ ইং তারিখে সকল শ্রমিকের পাওনাদি পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দেয় কিন্তু উক্ত তারিখেও পরিশোধ করেন নাই।
ফেডারেশনের সহ সভাপতি জনাব ফারুক খান এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেনঃ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতা মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক, কবির হোসেন এবং হেসং এর শ্রমিক ।
কর্মসূচীতে সংহতি জ্ঞাপন করেনঃ জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি জনাব কামরুল আহসান, ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল এর মহাসচিব জনাব তোহিদুর রহমান, বাংলাদেশ বিল্পবী গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি এবং আইবিসি’র অর্থ সম্পাদক জনাব সালাউদ্দিন স্বপন, সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি নাজমা আক্তার প্রমূখ।
বক্তারা অবিলম্বে হেসং কর্পোরেশন (বিডি) লিঃ এর মালিক, জিএম ও হামলাকারীদের গ্রেফতার এবং ২১৮ জন শ্রমিকের আইনানুগ পাওনাদি পরিশোধের ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য সরকার ও বিজিএমইএর প্রতি জোর দাবী জানান।

ধন্যবাদসহ

মোঃ ফারুক খান
সহ-সভাপতি,
মোবাইলঃ ০১৬২৫০০০৭৯৮